আজ ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

গাজীপুরে বাস থেকে ফেলে যাত্রীকে চাকায় পিষে মারলেন চালক!

মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম, গাজীপুরঃ

গাজীপুরে ভাড়া নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে যাত্রীকে বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে চাকায় পিষে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় চালক ও হেলপারকে আটক করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (৭ জুলাই) সকালে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের সংলগ্ন ঢাকা-শিববাড়ি সড়কে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত বাস যাত্রীর নাম সায়েম (২০)। ময়মনসিংহের নান্দাইল থানার আওলাপাড়া এলাকার মোঃ আবু সাইদের ছেলে।

আটকৃত বাস চালক নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ থানার কুটিপাড়া এলাকার আব্দুর মাহমুদের ছেলে মোঃ সফিকুল ইসলাম (২৬) ও হেলপার হারিছ মিয়া (২৭) নেত্রকোণার মোহনগঞ্জ থানার মাগান এলাকার ফরিদ মিয়ার ছেলে।

গাজীপুর সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মোঃ সাইদুর রহমান খান জানান, নিহত সায়েম গাজীপুর সদর উত্তর ছায়াবীথি এলাকায় আলিমের বাসায় ভাড়া থেকে স্থানীয় শিববাড়ির একটি গ্রিল ওয়ার্কশপে কাজ করতেন।

সায়েম কর্মস্থলে যাওয়ার জন্য বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে বাসা থেকে বের হয়ে তাকওয়া পরিবহনের বাসে ওঠেন। পথিমধ্যে ভাড়া নিয়ে হেলপারের সঙ্গে সায়েমের কথা কাটাকাটি হয়। এর জেরে হেলপার তাকে শিববাড়ি বাসস্ট্যান্ডে না নামতে দিয়ে আরও সামনের দিকে নিয়ে যায়। বাসটি যখন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের সংলগ্ন এশিয়ান ফার্নিচারের দোকানের সামনে পৌঁছে তখন সায়েমকে শিববাড়ি-জয়দেবপুর চৌরাস্তা সড়কে বাস থেকে ফেলে দেয়।

পরে ওই বাসের চাকাতেই পিষ্ট হয় সায়েম। ফলে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান। এ ঘটনায় বাসটি জব্দ এবং ঘাতক বাসের চালক ও হেলপারকে আটক করেছে পুলিশ।

গাজীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ রফিকুল ইসলাম জানান, এ ব্যাপারে বৃহস্পতিবার দুপুরে ভিকটিমের বাবা বাদী হয়ে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

নিহতের বাবা মোঃ আবু সাইদ জানান, আমার ছেলেকে বাসের চালক ও হেল্পার বাস থেকে ফেলে হত্যা করেছে। আমি জড়িত চালক-হেলপারের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

স্থানীয়রা জানান, প্রায় প্রতিদিনই তাকওয়া পরিবহণের বাসের চালক-হেলপারদের বিরুদ্ধে যাত্রীদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার ও লাঞ্চিত করার অভিযোগ পাওয়া যায়। তারা যখন-তখন ভাড়া বাড়িয়ে দেয়, যাত্রীরা এর প্রতিবাদ করলে তাদের সঙ্গে ঝগড়া করে।

এছাড়া, অধিকাংশ বাসের চালকের কোনো ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই। চালক-হেলপার অপ্রাপ্ত বয়স্ক। জেলা আইনশৃঙ্খলা সভায়ও এসব নিয়ে বিভিন্ন সময় অভিযোগ উঠেছে। তারপরও কোনো কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে না।


Deprecated: Theme without comments.php is deprecated since version 3.0.0 with no alternative available. Please include a comments.php template in your theme. in /home/somoyerb/public_html/wp-includes/functions.php on line 5059

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরো সংবাদ