আজ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ধর্মপাশায় কাজীরগাও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন জরাজীর্ণ, শিক্ষার্থীরা ভয়ে ক্লাসে আসছে না।

মোঃ মোশফিকুর রহমান স্বপন, সুনামগঞ্জঃ

সুনামগঞ্জ জেলার ধর্মপাশা উপজেলাধীন সুখাইড় রাজাপুর উত্তর ইউনিয়ন এলাকায় কাজীরগাও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন জরাজীর্ণ অবস্থায় আছে।
যেকোনো মুহূর্তে ভবন ধ্বসে দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে এমন আশঙ্কা করছেন ছাত্র, শিক্ষক ও অভিভাবকবৃন্দ।
জানা যায় ১৯৮৪ ইংরেজি সালে কাজীরগাও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন নির্মিত হয়।
কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে ভবনটির বিভিন্ন কক্ষে ফাটল ধরে এবং কোথাও ভেঙে যায়।
বিষয়টি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে বারংবার জানানো হলে সরেজমিনে দেখে ব্যবস্হা গ্রহণ করবেন বলে আশ্বস্ত করেন,কিন্তু অদ্যাবধি কোন ব্যবস্হা নিচ্ছেন না বলে ওই গ্রামের অভিভাবকবৃন্দ অভিযোগ করেন। ।এদিকে শিক্ষার্থীরা ভয়ে ক্লাসে আসছে না এবং অভিভাবকরা তাদের ছেলে মেয়েদের স্কুলে পাঠাতে অনীহা দেখাচ্ছেন।
এ বিষয়ে কাজীরগাও গ্রামের বাসিন্দা ও ৩ নং ওয়ার্ড মেম্বার সৈয়দ হোসেন বলেন,কাজীরগাও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন জরাজীর্ণ অবস্থায় আছে। দীর্ঘদিন ধরে এই সমস্যা থাকায় ছাত্র ও অভিভাবকদের মাঝে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। অভিভাবকরা তাদের ছেলে মেয়েদের স্কুলে পাঠাতে চান না।
আমি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাসরিন সুলতানা দিপা,উপজেলা চেয়ারম্যান এবং মাননীয় সাংসদ ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন মহোদয়ের সুদৃষ্টি কামনা করছি, যেন দ্রুত কাজীরগাও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি নির্মাণ করে দিয়ে ছাত্র ছাত্রীদের পড়াশুনার পরিবেশ তৈরি করে দেন।
এদিকে প্রধান শিক্ষক সাইদুর রহমান বলেন,স্কুলের অবস্থা খুবই খারাপ।ভবনের প্রতিটি কক্ষে ফাটল ধরেছে,ভেঙে গেছে। শিক্ষার্থীরা ভয়ে আতঙ্কে ক্লাসে আসছে না। অভিভাবকদের অনেকেই আমাকে চাপ দিচ্ছেন, যেন স্কুল মেরামত করা হয়, না হয় তারা ছেলে মেয়েদের স্কুলে পাঠাবেন না।
এ বিষয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মানবেন্দ্র দাস জানান, কাজীরগাও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়েটি জরাজীর্ণ ঘোষণা করা হয়েছে। খুব শীঘ্রই অন্যত্র ভবন নির্মাণ করা হব,প্রায় দুই লক্ষ টাকা মেরামতের জন্য বরাদ্দ হয়েছে। অচিরেই অন্যত্র মাটি ভরাট করে ঘর নির্মাণ করে দেব, যাহাতে আপাতত শিক্ষার্থীরা পড়াশুনা করতে পারে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরো সংবাদ