আজ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

একটি মুরগীর ডিম ১০ টাকা,হাঁসের ডিম ১৭ টাকা!

মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম, গাজীপুরঃ

বাজারে দ্রব্যমূল্যের অস্থিরতায় পিছিয়ে নেই ডিমও। খুচরা বাজারে ফার্মের মুরগির একটি ডিম ১০ টাকা, হালি ৪০ টাকা আর ডজন বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকায়।

ক্রেতারা বলছেন, মাছ-মাংসের পর এবার ডিমও চলে যাচ্ছে নিম্নবিত্তের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে। কারণ হিসেবে তারা বলছেন, ঢাকা শহরে প্রতিটি ডিম ৭ থেকে সর্বোচ্চ ৮ টাকা দামে খেয়ে অভ্যস্ত সাধারণ মানুষ। যে ডিম কয়েক মাস আগেও হালি মিলতো ২৮ থেকে ৩২ টাকায়, সেটাই হালিতে বেড়েছে ১০-১২ টাকা।

এরমধ্যেই আবার ডিমের দাম আরও বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা। তারা বলছেন, দফায় দফায় দাম বেড়ে এ পরিস্থিতি দাঁড়ালেও এখনো বাজারে সরবরাহ সংকট কাটেনি। সপ্তাহখানেক বাদে আরও কিছুটা বাড়তে পারে ডিমের দাম।

রবিবার (৬ মার্চ) সকালে শ্রীপুর উপজেলার জৈনাবাজারের খুচরা ডিম বিক্রেতা রুবেল মিয়া বলেন, দাম আরও বাড়বে, পাইকাররা এরইমধ্যে এমনটাই জানিয়েছে।

বাজারে পাইকারি ডিম কিনলে হালিতে ২ টাকা আর ডজনে ৫ টাকা কম পাওয়া যাচ্ছে। সেখানে মুরগির ডিমের (লাল) হালি বিক্রি হচ্ছে ৩৮ টাকায়। ডজনের হিসেবে বিক্রি হচ্ছে ১১৫ টাকা। একই ডিম পাড়া-মহল্লার খুচরা বিক্রেতারা বাজার থেকে এনে বিক্রি করছেন ১০ টাকা পিস দামে।

পাইকারি ডিমের আরতে প্রতি ১০০ পিস ডিম বিক্রি হচ্ছে ৯০০ থেকে ৯২০ টাকা দরে। যা এক সপ্তাহ আগেও ৮৪০ থেকে ৮৬০ টাকার মধ্যে ছিলো।

নয়নপুর বাজারের ডিম বিক্রেতা মাসুম বিল্লাহ জানান, তারা একশোর হিসাবে ডিম কেনেন। গত বৃহস্পতিবার ১০০ ডিম কিনেছেন ৮৮০ টাকা দরে। শনিবারে একই ডিম কিনতে হয়েছে ৯২০ টাকায়।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, এক ডজন হাঁসের ডিম বিক্রি হচ্ছে ১৮০ থেকে ২০০ টাকায়। অর্থাৎ, একটি হাঁসের ডিম কিনতে ক্রেতাকে খরচ করতে হচ্ছে ১৫ থেকে ১৭ টাকা।

খামারিদের বরাত দিয়ে ব্যবসায়ীরা বলছেন, দীর্ঘদিন উৎপাদন খরচের তুলনায় বাজারে ডিমের দাম কম থাকায় অনেক খামার বন্ধ হয়ে গেছে। সে কারণে এখন চাহিদার তুলনায় ডিমের উৎপাদন অনেক কম। সরবরাহ সংকটের কারণে দাম বাড়ছে।

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলার প্রায় ৫০ ভাগ ডিমের জোগান দেন গাজীপুরের খামারিরা। একসময় ওই জেলায় ডিম উৎপাদনকারী বা লেয়ার মুরগির খামার ছিলো ৪ হাজার ১০৬টি । কিন্তু ক্রমাগত লোকসানের কারণে অনেক খামার বন্ধ হয়ে গেছে। এখনো ওইসব এলাকায় আড়াই-তিন হাজার খামার রয়েছে। সেগুলোতে ডিমের উৎপাদন আগের তুলনায় অনেক কম।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরো সংবাদ