আজ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবাদ বিরোধী নেতা ডেসমন টুটুর মৃত্যু।

দেওয়ান মোঃ ইমরান:

দক্ষিণ আফ্রিকার আরেক বর্ণবাদ বিরোধী অবিসংবাদিত নেতা নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী আর্চবিশপ ডেসমন্ড টুটু ৯০ বছর বয়সে আজ রবিবার কেপটাউনে মারা গেছেন।যিনি নেলসন ম্যান্ডেলার অন্যতম সহযোগী হিসেবে ৪৩ বছর বর্ণবাদ বিরোধী আন্দোলন চালিয়ে গিয়েছিলেন।
দেশটির স্বাধীনতা সংগ্রামে অসামান্য অবধান রাখা মহান এই নেতার মৃত্যুর খবরে শোকের ছায়া নেমে আসে গোটা দক্ষিণ আফ্রিকায়। দেশটির প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসা বলেছেন, চার্চম্যানের মৃত্যু দক্ষিণ আফ্রিকানদের বিশাল ক্ষতি হয়েছে।তার বিদায়ে শোক কাটিয়ে ওঠা দক্ষিণ আফ্রিকানদের জন্য কঠিন হয়ে যাবে।
বর্ণবাদ বিরোধী আইকন নেলসন ম্যান্ডেলার একজন সমসাময়িক সহযোগী হিসাবে টুটু ১৯৪৮ সাল থেকে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত দক্ষিণ আফ্রিকার সংখ্যাগরিষ্ঠ কৃষাঙ্গদের অধিকার আদায়ের জন্য শ্বেতাঙ্গ সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে জাতিগত বিচ্ছিন্নতা এবং বৈষম্যের নীতির অবসান ঘটাতে আন্দোলনের অন্যতম চালিকাশক্তি ছিলেন। বর্ণবৈষম্য প্রথা বিলুপ্ত করার সংগ্রামে অন্যতম ভূমিকার জন্য তিনি ১৯৮৪ সালে নোবেল পুরস্কার লাভ করেছিলেন।
এর আগে ৮৫ বছর বয়সে মারা যাওয়া দক্ষিণ আফ্রিকার শেষ বর্ণবাদ যুগের প্রেসিডেন্ট এফডব্লিউ ডি ক্লার্কের কয়েক সপ্তাহ পরে টুটুর মৃত্যু ঘটে।
টুটুর মৃত্যুতে প্রেসিডেন্ট রামাফোসা বলেন, টুটু ছিলেন “একজন আইকনিক আধ্যাত্মিক নেতা, বর্ণবাদ বিরোধী নেতা এবং বিশ্বে মানবাধিকার প্রচারক”।তিনি তাকে একজন দেশপ্রেমিক; নীতি এবং বাস্তববাদের নেতা হিসাবে বর্ণনা করেছিলেন যিনি বাইবেলের অন্তর্দৃষ্টির অর্থ দিয়েছিলেন যে কাজ ছাড়া বিশ্বাস মৃত।

“বর্ণবাদের শক্তির বিরুদ্ধে অসাধারণ বুদ্ধি, সততা এবং অজেয়তার অধিকারী একজন মানুষ ছিলেন টুটু। বর্ণবাদের অধীনে যারা নিপীড়ন, অবিচার ও সহিংসতা এবং বিশ্বজুড়ে নিপীড়িত ও নিপীড়িত মানুষদের প্রতি তার সহানুভূতিতে কোমল এবং দুর্বল ছিল বলে প্রেসিডেন্ট যোগ করেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরো সংবাদ