আজ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

দশ শিশুর মূল্য ২ মিলিয়ন রেন্ড!!

Dewan imran, Africa:

দক্ষিণ আফ্রিকায় একসাথে ১০ শিশুর জন্মের ঘটনাটি মিথ্যা নয় বরং সত্য তবে এসব শিশুদের ২ মিলিয়ন রেন্ডের বিনিময়ে আর্ন্তজাতিক শিশু পাচারকারী চক্রের কাছে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে।তদন্ত কমিশনের তদন্তে এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে এসেছে। দক্ষিণ আফ্রিকায় গোসিয়াম থামারা সিথোল নামে একজন কৃষ্ণাঙ্গ মহিলা ১০ শিশুর জন্ম দিয়ে গ্রিনিচ বুকে স্হান করে নেওয়ার সংবাদ বিশ্বব্যাপী আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল।সেই সাথে ১০ শিশুর জন্ম দেওয়া না দেওয়া নিয়ে পক্ষে বিপক্ষে অনেক মতবিরোধ এবং মতানৈক্য তৈরি হয়েছিল।তবে তদন্ত কমিশন ঘটনার সত্যতা খুঁজে পেয়েছে।

চলতি বছরের ৭ জুন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রিটোরিয়ায় একটি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের গাইনি বিভাগে কৃষ্ণাঙ্গ নারী গোসিয়াম একসাথে ১০ শিশুর জন্ম দেওয়ার সংবাদটি সর্বপ্রথম প্রকাশ করেছিলেন প্রিটোরিয়া ভিত্তিক একটি অনলাইন সংবাদ মাধ্যম।পরে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশের অভিযোগ এনে ঐ সংবাদপত্রের সম্পাদককে বহিষ্কার পর্যন্ত করা হয়েছিল।

১০ শিশুর জন্ম দেওয়ার একসপ্তাহ পর বিষয়টি দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গ প্রাদেশিক স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে অস্বীকার করে সংবাদ মাধ্যম বিবৃতি দেওয়া হয়েছিল।এই নিয়ে তুমুল বির্তক সৃষ্টি হওয়ার পর গঠিত হয় বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি।

“থেম্বিসা টেন” নামে একটি স্বাধীন বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিশন গঠন করা হয়।কমিশনের দীর্ঘ ৪ মাসের তদন্তে বের হয়ে আসে ভয়ংকর তথ্য।আজ বুধবার সকালে কমিশনের সম্পাদক পিয়েট রামপেডি আনুষ্ঠানিক এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, কৃষ্ণাঙ্গ মহিলা গোসিয়াম গর্ভবতী ছিল এবং ৭ জুন ১০ শিশুর জন্ম দিয়েছে।হাসপাতালের কিছু অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারীর সহযোগিতায় ২ মিলিয়ন রেন্ডের বিনিময়ে ১০ নবজাত শিশুকে আর্ন্তজাতিক শিশু পাচারকারীর কাছে বিক্রি করে দেয় শিশুদের মা বাবা।তদন্ত কমিশন জানতে পেরেছেন এই পাচারের সাথে সরকারি কর্মকর্তা ও স্বাস্থ্য বিভাগের কিছু কর্মকর্তা জড়িত।তদন্ত কমিশন বলেছেন,এরা সরকার এবং জাতির সাথে প্রতারণা করেছে।পাচারকারীরা এসব শিশুকে ইউরোপ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পাঠিয়েছে।মূলত ইউরোপ আমেরিকায় নিঃসন্তান দম্পতিদের কাছে ছড়া দামে এসব শিশুকে বিক্রি করেছ৷তদন্ত কমিশনের পাওয়া তথ্যে জানা গেছে,নিঃসন্তান দম্পতি ছাড়াও এসব শিশুকে কসমেটিক সার্জারীতে ব্যবহার করা হবে।২ মিলিয়ন রেন্ডের বিনিময়ে এসব শিশুদের বিক্রি করা হয়েছে।

তদন্ত কমিশনের নির্বাহী চেয়ারম্যান ইকবাল সার্ভে, প্রসূতি ও স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ এমফো পু এবং মানবাধিকার আইনজীবী মাইকেল ডোনান ও সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন।কমিশন বলছে,আগামী ১২ সপ্তাহের মধ্যে তদন্তের সম্পূর্ণ একটি তথ্যচিত্র প্রকাশ করা হবে, যাতে হাসপাতালের সিইও এবং হাউটেং প্রদেশের স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধানকে অভিযুক্ত করে আইন অনুযায়ী শাস্তির সুপারিশ করা হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরো সংবাদ