আজ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

গাজীপুর ইউপি নির্বাচনে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী বীরমুক্তিযোদ্ধা এস.এম.এ বারী

মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম, গাজীপুরঃ

ভাল মানুষেরা কখনো নিজেদের ভালত্ব প্রকাশ করে না! আড়ালে আবডালে ভাল কাজ করে যায়! এজন্যেই ভাল মানুষ কম মনে হয়! তবে পৃথিবীতে ভাল মানুষেরা আছে বলেই পৃথিবীটা আজো সুন্দর।

ভালোমানুষ, দরদী মানুষ, মানবপ্রেমি মানুষ সবাই হতে পারেনা, কিন্তু ভালো মানুষের অপেক্ষাতো সবাই করতে পারে, তাইনা? তেমনি অপেক্ষার পরেই আমরা পেয়েছি এমন একজন দরদী মানুষ।
আজ তারই কথা বলবো, নামঃ এস. এম. এ. বারী উপাধি: বীর মুক্তিযোদ্ধা জন্ম তারিখ: ২৯ শে জানুয়ারী, ১৯৫৭ সাল। পিতার নাম মরহুম শামশুদ্দিন, মাতার নাম মরহুমা নূরজাহান আক্তার বর্তমান ঠিকানা: ধনুয়া, ইউনিয়ন গাজীপুর, উপজেলা শ্রীপুর, জেলা – গাজীপুর।

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ এস.এস.সি. ১ ম শ্রেণী পেয়ে উত্তীর্ণ, ১৯৭২ ( গাজীপুর উচ্চ বিদ্যালয় , গাজীপুর ) এইচ.এস.সি, ২ য় শ্রেণী পেয়ে উত্তীর্ণ, ১৯৭৫ ( শ্রীপুর মুক্তিযোদ্ধা রহমত আলী সরকারি কলেজ, শ্রীপুর ) নৃতত্বে স্নাতক ডিগ্রি লাভ, ১৯৭৭, ৩ য় শ্রেণী, ( ভাওয়াল বদরে আলম সরকারি কলেজ, গাজীপুর )
পেশাঃ ব্যবসা,
ধনুয়া উচ্চবিদ্যালয়ের বর্তমান এডহক কমিটির সভাপতি ও সামাজিক কর্মকান্ডে সক্রিয়।

পারিবারিক তথ্যঃ স্ত্রী, সায়মা ইয়াসমিন, গৃহিণী। পুত্র, এস.এম ফাইসাল বারী, বয়স -২৮ চাকুরীজীবি ( ইন্টেরিওর আর্কিটেষ্ট ) বড় কন্যা- ফৌজিয়া বারী নাফি , বয়স ২৫ , চাকুরীজীবি ব্যাংকার , মাল্টিন্যাশনাল ব্যাংক ) ছোটকন্যা- ফারজানা বারী রাফি , বয়স ২২ , ছাত্রী ( স্নাতক , ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় )

রাজনৈতিক কৃতিত্বঃ ছাত্রলীগের সদস্যপদ গ্রহণ, ১৯৬৭ শ্রীপুর থানা ছাত্রলীগের সদস্যপদ গ্রহণ, ১৯৬৮ গণ আন্দোলনে অংশগ্রহণ, ১৯৬৯ নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণ ও সার্বিক সহায়তা প্রদান, ১৯৭ জীবনবৃত্তান্ত স্বাধীন বাংলা মুক্তিবাহিনী যোগদান ও মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণ, ১৯৭১ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে ভারত গমন, বর্তমান মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রনালয় আ.ক.ম. মোজাম্মেল হক সাহেবের উপস্থিতিতে ভারতের ত্রিপুরা ক্যাম্পের গকুল নগরে ট্রেনিং গ্রহণ এবং মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণ।

যুদ্ধ – পরবর্তী ছাত্রলীগের কর্মকান্ডে যোগদান, ১৯৭৫ শিক্ষকতার চাকুরী নিয়ে ধনুয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে যোগদান, ১৯৭৮ ইউনিয়ন ও থানা রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ততা বৃদ্ধিকরণ, ১৯৮০ এরশাদ বিরোধি আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহন, ১৯৯০ তত্ত্বাবধায়ক আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা পালন, ১৯৯৫ সবুজবাগ থানার আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী জনাব সাবের হোসেন চৌধুরীর নির্বাচনে সক্রিয় দায়িত্বের সহিত অংশগ্রহণ ও সহায়তা প্রদান, ১৯৯৬ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়, বঙ্গবন্ধু এ্যাভিনিউতে যোগদান, ২০০৩ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা মহোদয়ের সাথে সেচ্ছাসেবক লীগের স্বীকৃতি সভায় কৃষিবিদ বাহাউদ্দিন নাসিম ভাইয়ের নেতৃত্বে আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়, বঙ্গবন্ধু এ্যাভিনিউতে যোগদান।

সবুজবাগ থানা আওয়ামীলীগের ত্রি – বার্ষিক সম্মেলনে নির্বাচিত বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক, ২০০৫ বি.এন.পি উচ্ছেদ আন্দোলনে, জনতার মঞ্চে সার্বক্ষনিক অবস্থান, ২০০ সবুজবাগ থানার নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহন, ২০০৮ জাতীয় নির্বাচনে নির্বাচনী প্রচারনা চালানো, ২০১৪ গাজীপুরের বর্তমান এমপি জনাব মোঃ ইকবাল হোসেন সবুজ সাহেবের পক্ষে গাজীপুর ইউপি – তে উঠান বৈঠকে অংশগ্রহণ ও প্রচারনা বৃদ্ধিতে সহায়তা, ২০১৬-২০১৮ নির্বাচনে সর্বক্ষন তৃণমূল পর্যায়ে থেকে দায়িত্ব পালন, ডিসেম্বর ২০১৮ ‘ বর্তমানে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ গাজীপুর ইউনিয়ন শাখা, গাজীপুর – এর সম্মানীত সদস্য।

সামাজিক অবদানঃ ধনুয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের বর্তমান এডহক কমিটির সভাপতি, ধনুয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে নিজস্ব অর্থায়নে ১ টি দালান ঘর নির্মাণ করে দেয়া। উক্ত বিদ্যালয়ে সভাপতি হিসাবে ১৯৯০ থেকে ১৯৯৩ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন। বিভিন্ন মসজিদ, মাদ্রাসায় অনুদান বিভিন্ন সমযে / দুঃসময়ে এলাকার দুস্থদের আর্থিক সহায়তা প্রদান ও বস্ত্র বিতরণ। ২০০৯ সালে গাজীপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহন। ২০১১ সালে মতিঝিল মডেল হাই স্কুল এন্ড কলেজ – এর অভিভাবক সদস্য পদে প্রার্থী হিসেবে অংশগ্রহন।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শের এই সৈনিক দলের নিবেদিত কর্মী হিসেবে কাজ করে সমাজসেবায় অসাধারণ ভূমিকা পালন করায় মানুষের হৃদয়ে স্থান পেয়েছেন। তিনি দলের প্রতি অগাধ বিশ্বাস, আস্থা, শ্রদ্ধা ও সম্মান জানিয়ে ২নং গাজীপুর ইউনিয়নকে ডিজিটাল ইউনিয়ন পরিষদ গড়ে তোলার লক্ষ্যে চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছেন।

তিনি বলেন,বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশে শেখ হাসিনার উন্নয়নে বিশ্ব আজ বিষ্ময়দৃষ্টিতে তাকিয়ে হতবাক।কতিপয় কুচক্রিমহল মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর এ উন্নয়নের ধারা বাধাগ্রস্ত করতে ধারাবাহিক অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে যা জাতির জন্য লজ্জাস্কর।তা প্রতিরোধ করে উন্নয়নের ধারাকে তৃণমূলের ঘরে ঘরে পৌঁছে দিতে এবং বাল্যবিবাহ বন্ধ ও সুশিক্ষা নিশ্চিত করনসহ পরিবেশ,প্রতিবেশ,বৃক্ষরোপন, খেলাধুলা,সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সঠিক চর্চাসহ রাস্তাঘাট উন্নয়নে শতভাগ শ্রম দিয়ে একাত্তুরের মত শেখ হাসিনার উন্নয়নের অংশিদার হয়ে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে আত্মনিয়োগ করাই হবে আমার ব্রত।

তিনি আরও বলেন, দল যদি আমাকে যোগ্যপ্রার্থী মনে করে নৌকা দেয় তাহলে গাজীপুর ইউপি নির্বাচনে বিপুল ভোটের ব্যবধানে আমি নির্বাচিত হবো ইনশাআল্লাহ। আমি আশাবাদী জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে নৌকা উপহার দিয়ে গাজীপুর ইউনিয়নবাসীর সেবা করার সুযোগ করে দিবেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরো সংবাদ