আজ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২রা মার্চ, ২০২১ ইং

পুঠিয়ায় বরই চাষে ঝুঁকছে শিক্ষিত কৃষক

রাজশাহী প্রতিনিধি:

রাজশাহীর পুঠিয়ায় কৃষি খাতে নতুন সম্ভাবনার আরেক নাম বরই চাষ। এ উপজেলায় চারিদিকে ফসলি জমি কেটে যখন পুকুর খনন চলছে ঠিক সে সময় অধিক লাভের আশায় স্থানীয় শিক্ষিত এক যুবক ৪ বিঘা জমিতে বরই চাষে ঝুঁকে পড়েছেন। চলতি মৌসুমে ইতমধ্যেই নানা জাতের বরই সংগ্রহ ও বাজারজাত করণের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

প্রাথমিকভাবে বাজারদর ভালো থাকার ফলে সন্তোষ প্রকাশ করছেন এই বরই চাষী। স্বল্পমেয়াদে অধিক ফলন ও লাভবান হবার ফলে বরই চাষে আগ্রহের সীমা নেই বানেশ্বর ইউনিয়নের জরমডাঙ্গা গ্রামের আজহার আলীর ছেলে মো. বাবুল ইসলামের।

তিনি ৪ বিঘা জমিতে ৩ বছর ধরে বলসুন্দরি ও কাশ্মীরি জাতের বরই চাষ করছেন। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরে এ উপজেলায় মোট ৬৫ হেক্টর জমিতে চাষ হচ্ছে বিভিন্ন জাতের বরই। চলতি বছরে ৫শ ৮৫ মেট্রিক টন বরই উৎপাদন হতে পারে ও হেক্টরে ফলন ৯ টন। যা গতবছর ২৩ হেক্টর জমিতে ফলন ধরা হয়েছিল হেক্টরে ৮ টন। এ অঞ্চলে কাশ্মিরী , বাউকূল, আপেল কূল, বলসুন্দরী জাতের বরইও চাষ হচ্ছে। সবচেয়ে সুস্বাদু এবং চাহিদা বেশি হবার ফলে এ উপজেলায় বলসুন্দরী ও কাশ্মিরী জাতের বরই চাষ হচ্ছে বেশি।

বরই চাষী বাবুল ইসলাম জানান, তিন বছর ধরে বরই বাগান করেছেন তিনি। আবহাওয়া ভালো হবার ফলে চলতি বছরে বরইয়ের উৎপাদন অনেক ভালো। বাজারে এ বছরে বলসুন্দরী জাতের বরই প্রতিমন বিক্রয় হচ্ছে ২৮শ থেকে ৩ হাজার টাকা। এরকম বাজার স্থিতিশীল থাকলে বরই চাষে অনেক লাভবান হব।

পুঠিয়া উপজেলা কৃষি অফিসার শামসুন নাহার ভুঁইয়া জানান, গত অর্থবছরে আমাদের কুলের আবাদ হয়েছিল ২৩ হেক্টর জমিতে এই বছরে আবাদ হয়েছে ৬৫ হেক্টর জমিতে। অনুকূল পরিবেশ থাকায় এবার ফলন আরো বেশী আশা করছি আর আমরা যেটা ফলন ধরেছি আশা করছি সেটা ছাড়িয়ে যাবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরো সংবাদ