আজ ৯ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

সিলেট বিমান অফিসের সামনে প্রবাসিদের বিক্ষোভ

মোঃইবাদুর রহমান জাকির, সিলেট প্রতিনিধিঃ :

সিলেট বিমান অফিসের সামনে বিক্ষোভ করেছেন টিকিট প্রত্যাশী প্রবাসীরা। টিকিট বুকিং দিতে গিয়ে চরম হয়রানীর শিকার হওয়ার অভিযোগ এনে বিক্ষোভ করেন তারা।

বুধবার (১২ আগস্ট) সিলেট নগরের মজুমদারী এলাকায় বিমান অফিসে গিয়ে টিকেট বুকিং করতে না পেরে ক্ষোভে ফেটে পড়েন প্রবাসী যাত্রীরা।

তাদের দাবি, রিটার্ন টিকিট থাকার পরও তাদের অনেকের কাছে ৮ হাজার থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত ‘উৎকোচ’ দাবি করা হচ্ছে। এছাড়া টোকেন বাণিজ্যের মাধ্যমে হয়রানির শিকার হচ্ছেন তারা।

সূত্রে জানা গেছে, করোনাকালে দেশে ছুটিতে এসে আটকা পড়েন হাজার হাজার প্রবাসী। এতদিন ফ্লাইট বন্ধ থাকায় দেশে আটকে পড়া প্রবাসীরা বিমানের আসন সঙ্কটের কারণে এখন ভোগান্তিতে পড়েছেন। তাদের অনেককে টোকেন দিয়ে ৩ থেকে ৪ দিন ধরে ঘুরিয়েও কোনো সিদ্ধান্ত না দিয়ে ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

প্রবাসীদের অনেকে বলেন, তাদের রিটার্ন টিকিট থাকার পরও বিমান অফিস থেকে ১৮ হাজার ৫শ’ টাকা করে চাওয়া হচ্ছে। শুধু তাই নয়, লাইনে দাঁড়ানো থাকলেও ২ থেকে ৫ হাজার টাকার বিনিময়ে সিরিয়াল রদবদল করে দেওয়া হচ্ছে। আর যারা ট্রাভেলসের মাধ্যমে মোটা অংকের টাকা দিয়ে আসছেন, তাদেরকে আগে টিকিট কনফার্ম করে দেওয়ার অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী প্রবাসীরা।

অভিযোগকারীরা দাবি করেন, বিমান অফিসে এলে অমানুষের মতো ব্যবহার করা হয়। বিদেশ থেকে শ্রমেঘামে দেশের জন্য রেমিটেন্স পাঠালেও বিমান অফিস থেকে এতটুকু ভাল ব্যবহারও পাচ্ছেন না। তাই সরকারের উচ্চ মহলের হস্তক্ষেপ করেন তারা।

সূত্র জানায়, সিলেটের বিভিন্ন অঞ্চলের প্রায় সহস্রাধিক প্রবাসী টিকেট কনফার্ম করতে বিমান অফিসে যান। কিন্তু আগামী ৩০ তারিখ পর্যন্ত দুবাইগামী বাংলাদেশ বিমানের কোনো ফ্লাইটেরই কোনো আসন খালি নেই বলে জানিয়ে দেওয়া হয়। এ খবর পেয়ে টিকিট প্রত্যাশীরা বিক্ষোভে ফেটে পড়েন। দুপুরে তারা নগরের মজুমদারী এলাকায় বিমান অফিসের সামনে এয়ারপোর্ট সড়কে ঘণ্টাখানেক অবরোধ করে রাখেন। পরে পুলিশ এসে অবরোধ তুলে দেয়।

এ বিষয়ে সিলেট বিমান অফিসের জেলা ব্যবস্থাপক মো. শাহনেওয়াজ মজুমদার বলেন, বাংলাদেশে বিমানের টিকেট সঙ্কটের কারণে সিলেটে আটকা পড়া দুবাই প্রবাসীরা অফিসের সামনে জড়ো হয়েছেন। আগামী ৩০ তারিখ পর্যন্ত বাংলাদেশ বিমানের কোনো ফ্লাইটেরই কোনো আসন খালি নেই। তবে তাদের কাগজপত্রের ফটোকপি আমরা রেখে দিচ্ছি, যখনই টিকেট সহজলভ্য হবে তাদেরকে মেসেজের মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরো সংবাদ